শাওমি স্মার্টফোনের বিরুদ্বে ব্যবহারকারীর তথ্য ব্রাউজারের মাধ্যমে সংরক্ষনের অভিযোগ। ডেইলি বার্তা বিডি

2
381

পৃথিবীর শীর্ষস্থানীয় স্মার্টফোন প্রস্তুতকারক কোম্পানি শাওমির বিরুদ্ধে ‘ছদ্মবেশী রূপে’ তাদের স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে ব্রাউজারের ডেটা সংগ্রহ করার অভিযোগ উঠেছে।

হোয়াইট অপস,এর সিকিউরিটি গবেষক ফোর্বস-এ প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে দেখা গেছে যে রেডমি নোট 8 ডিভাইসটি ওয়েব ব্রাউজারগুলি ডিফল্ট ব্রাউজারের পাশাপাশি মিন্ট ব্রাউজার – থেকে ‘বেস 64’ ফর্ম্যাটটি ব্যবহার করে এনক্রিপ্ট করা ছিল যা ব্যবহারকারীর তথ্য সিফোন করছে।

শাওমির Mi10, K20, এবং Mi Mix 3, তে একই দুর্বলতা পাওয়া গেছে।

ব্যবহারকারীর তথ্য সংগ্রহের পরে, সেই তথ্য গুলো আলিবাবা সার্ভারে সংরক্ষণ করা হয়েছিল।

সুরক্ষা গবেষকদের উত্থাপিত মূল সমস্যাটি হল যদিও শাওমির সংগৃহীত ডেটাগুলি গোপনীয়তা বা সুরক্ষা মানকে সরাসরি লঙ্ঘন করে না, তথ্যের সাহায্যে তাদের স্মার্টফোন ব্যবহারের অনুশীলনের উপর ভিত্তি করে যেকোন ব্যবহারকারীর সব কিছু জানতে সহায়তা করতে পারে।

তবে গুগল এবং অ্যাপল এর মতো অন্যান্য প্রযুক্তি জায়ান্টদের বিরুদ্ধেও ব্যবহারকারীদের পছন্দসমূহ তথ্য বিশ্লেষণ করে, বিশ্লেষণ করা ডেটা সংগ্রহ করার জন্য একই ধরনের অভিযোগ আনা হয়েছে।

ফোর্বসের প্রতিবেদনের জবাবে শিয়াওমি তাদের অবস্থানকে ‘ভুল উপস্থাপিত’ বলে বর্ণনা করে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন।

শাওমি বাংলাদেশের মুখপাত্রদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা শাওমির পক্ষ থেকে একটি বিবৃতি শেয়ার করেছেন যা তথ্য একত্রিত করার বিষয়টি অস্বীকার করে না, তবে তারা কীভাবে নির্দিষ্ট ব্যবহারকারীর তথ্য বেনামে রাখছিল এবং তাদের গোপনীয়তা রক্ষার জন্য প্রক্রিয়াটি এনক্রিপ্ট করছে, তাহার একটি গ্রহণযোগ্য বৈশ্বিক ব্যাখা দেন।

বিবৃতিটি কীভাবে ডেটা প্রক্রিয়াজাত করা হয় তার স্ক্রিনশটগুলিও দেখায় এবং আপডেট সরবরাহ করার প্রতিশ্রুতি দেয়। যাহা বর্তমানে অ্যাপ স্টোরটিতে পাওয়া যায়। যেখানে কোনও ব্যবহারকারী সামগ্রিক ডেটা সংগ্রহ থেকে অপ্ট আউট করতে পারে।

2 COMMENTS

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here